অহংকার’ ছবির শুটিং-এ আর অংশ নেবেন না মিজু আহমেদ।






গতকাল সোমবার রাত ৮টার দিকে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান চলচ্চিত্র অভিনেতা ও প্রযোজক মিজু আহমেদ । এর আগে সারা দিন তিনি বিএফডিসিতে শাহাদাৎ হোসেন লিটন পরিচালিত ‘অহংকার’ ছবির শুটিং করেছেন । শুটিংয়ের সময়ের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বারবারই আবেগতাড়িত হয়ে পড়ছিলেন পরিচালক লিটন । ‘অহংকার’ ছবিতে আর অংশ নেবেন না মিজু আহমেদ ।

 

লিটন বলেন, ‘শুটিং শেষ করেছি দুপুর ১টার দিকে । আমি জানতাম, তিনি রাতে দিনাজপুর যাবেন শুটিং করতে । তাই জানতে চাইলাম, আপনি কি দুপুরে এখানে খাবেন, না বাসায় গিয়ে খাবেন ? মিজু ভাই হেসে বললেন, আমি এফডিসিতেই খাব । বলে বিদায় নিয়ে শিল্পী সমিতিতে চলে গেলেন । আমরা সেখানেই দুপুরের খাবার পাঠিয়ে দিই ।’

 

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির অফিস সহকারী জাকির হোসেন বলেন, “দুপুর ১টার দিকে মিজু স্যার শিল্পী সমিতিতে আসেন । অজু করে নামাজ পড়েন । এরই মধ্যে শুটিং থেকে খাবার চলে আসে । আমি খাবার রেডি করে উনাকে খাওয়াই । তখন উনার সঙ্গে আমার কথা হয় । কত দিনের জন্য শুটিংয়ে যাচ্ছেন—জানতে চাইলে তিনি বলেন, সেখানে সাত দিন শুটিং করার কথা । আহম্মেদ ইলিয়াস ভূঁইয়া পরিচালিত ‘মানুষ কেন অমানুষ’ ছবিতে অভিনয় করবেন । আসরের নামাজ পড়ে আমার কাছ থেকে দিনাজপুরের টিকেট নিয়ে এফডিসি থেকে পান্থপথের বাসায় গেলেন । সন্ধ্যা ৭ টাই কমলাপুর থেকে উনি ট্রেনে ওঠেন । সাড়ে ৮টার দিকে আমাদের সমিতিতে ফোন আসে, তিনি মারা গেছেন ।”

আহম্মেদ ইলিয়াস ভূঁইয়া পরিচালিত ‘মানুষ কেন অমানুষ’ ছবির শুটিং করার জন্য গতকাল সন্ধ্যা ৭টায় কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে ট্রেনে করে দিনাজপুরের উদ্দেশে রওনা হন মিজু আহমেদ । ট্রেন তেজগাঁও স্টেশনে যাওয়ার আগেই হৃদরোগে আক্রান্ত হন । পরে তাঁকে বিমানবন্দর স্টেশনে নামানোর পর কুর্মিটোলা হাসপাতালে নেওয়া হয় । সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন । তাঁর বয়স হয়েছিল ৬২ বছর ।

Be the first to comment

Leave a Reply